৫ অক্টোবর জেলা সড়ক ও জনপথ অফিস ঘেরাও

গাইবান্ধা-নাকাইহাট সড়কের পৌরসভা অংশে কলেজরোডে ফুটপাত নির্মাণের দাবিতে মঙ্গলবার  মানববন্ধন, সমাবেশ, সড়ক অবরোধ ও গণস্বাক্ষর সম্বলিত গণআবেদন প্রদান কর্মসূচি পালন করা হয়। স্থানীয় নাগিরিক সংগঠন সচেতন গাইবান্ধাবাসীর উদ্যোগে জেলা পরিষদের সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশের ওয়াকার্স পার্টির পলিট ব্যুরো সদস্য আমিনুল ইসলাম গোলাপের সভাপতিত্বে ও অধ্যাপক রোকেয়া খাতুনের সঞ্চালনায় সমাবেশে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন  পৌর মেয়র অ্যাড. শাহ্ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবীর মিলন, সাবেক এমপি আব্দুর রশিদ সরকার, মুক্তিযোদ্ধা ময়নুল হোসেন রাজা, সমাজকর্মী জাহাঙ্গীর কবীর তনু, জেলা জাসদ সভাপতি গোলাম মারুফ মনা, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল হক জনি, জেলা বাসদ সমন্বয়ক গোলাম রব্বানী, কৃষক-শ্রমিক জনতা লীগের জেলা সভাপতি মোস্তফা মনিরুজ্জান, বাসদ মার্কসবাদী জেলা সদস্য সচিব মনজুর আলম মিঠু, আবু রাহেন শফিউল্য্যাহ খোকন,  প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, কলেজ রোডে জেলার সর্ববৃহৎ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গাইবান্ধা সরকারি কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের হাজার হাজার শিক্ষার্থী প্রতিদিন এই সড়ক দিয়েই যাতায়ত করে। গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালসহ বেশ কয়েকটি বেসরকারি ক্লিনিকের রোগী এবং তাদের স্বজনদের চলাচলের একমাত্র সড়কও এটাই।

সম্প্রতি নতুন করে প্রশস্থ করাসহ এই সড়কের নির্মাণ কাজ চলছে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য এই সড়কের দু’পাশে কোন ফুটপাত নেই। সড়ক প্রশস্থকরণের ফলে সড়কে ব্যাটারিচালিত রিক্সা-ভ্যান, ইজিবাইক, সিএনজিচালিত অটোরিক্সা, মোটরসাইকেল, বাস-ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচল বৃদ্ধি পাবে। সেইসাথে ব্যস্ততম এই সড়কে ফুটপাত না থাকলে দ‚র্ঘটনার শঙ্কাও বাড়বে।

সমাবেশ থেকে বক্তারা এই সড়কে ফুটপাত নির্মাণের জোর দাবি জানান। পাশাপাশি আগামী ১৫ দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট দফতরকে এ বিষয়ে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণের আহবান জানান। অন্যথায় আগামী ৫ অক্টোবর জেলা সড়ক ও জনপথ কার্যালয় ঘেরাও এবং অবস্থান কর্মসূচির আল্টিমেটাম দেন। সমাবেশ শেষে কর্মসূচিতে অংশগ্রহকারীরা গাইবান্ধা-নাকাইহাট সড়কটি অবরোধ করে। এসময় দুপাশে যানজটের সৃষ্টি হয়। পরে আয়োজকদের একটি প্রতিনিধি দল কয়েক সহস্রাধিক মানুষের স্বাক্ষর সম্বলিত একটি গণআবেদন গাইবান্ধা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের কাছে প্রদান করে।

শর্টলিংকঃ