মসজিদ হামলা

৫১ মুসল্লিকে হত্যার দায়ে ব্রেন্টন ট্যারান্টের যাবজ্জীবন

নিউজিল্যান্ডের দুটি মসজিদে হামলা করে ৫১ জনকে হত্যায় অভিযুক্ত ব্রেন্টন টারান্টকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের একটি আদালত। দেশটির ইতিহাসে এই প্রথম নিউজিল্যান্ডে প্যারোল ছাড়া যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়ার ঘটনা এটাই প্রথম। ২০১৯ সালের ১৫ই মার্চ ক্রাইস্টচার্চের দুইটি মসজিদে গুলি করার ঘটনায় মামলা হয়। এই মামলায় টানা চার দিন শুনানি শেষে আজ এ মামলায় রায় ঘোষণা করেছেন ক্রাইস্টচার্চ আদালতের বিচারক ক্যামেরন ম্যান্ডার।

এ সময় আদালতে উপস্থিত টারান্টের উদ্দেশে বিচারক বলেন, ‘আপনি নিজেকে মানসিকভাবে চরম অসুস্থ ব্যক্তি হিসেবে উপস্থাপন করেছেন, যে কি না নিজের থেকে ভিন্ন মনে করা অন্য মানুষদের ঘৃণা করে। আপনি যে ক্ষতি করেছেন তার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা বা জনসম্মুখে স্বীকারোক্তি দেননি। যদিও আমি আপনার (আদালতের) এই প্রক্রিয়াগুলো প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার করার সুযোগ ত্যাগ করার প্রশংসা করছি, কিন্তু আপনাকে মোটেও অনুতপ্ত বা লজ্জিত দেখাচ্ছে না।

প্রসঙ্গত, মসজিদে হত্যাকাণ্ডের দায়ে গ্রেপ্তার হওয়ার পরও নিরুত্তাপ ছিল ব্রেন্টন। প্রথমবার শুনানির সময় আদালত চত্বরে তাকে হাসতে দেখা গিয়েছিল, যা দেখে ক্ষুব্ধ হয়েছিল নিহতদের পরিবার। সাধারণত সর্বাধিক ১৭ বছর পর্যন্ত কারাবাসের সাজা হয় নিউজিল্যান্ডে। ব্রেন্টনের রায়ের ক্ষেত্রে এই প্রথম গতানুগতিকের চেয়েও কড়া সাজা শোনালেন নিউজিল্যান্ডের আদালত। এই প্রথম সারা জীবনের জন্য কাউকে কারাবাসের সাজা শোনানো হলো। কারাবাসকালে প্যারোলেও মুক্তি পাবে না ব্রেন্টন ট্যারান্ট।তথ্যসূত্র : ইয়ন

শর্টলিংকঃ