রাজশাহী পলিটেকনিকে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ

রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে অধ্যক্ষকে টেনে-হিঁচড়ে পুকুরের পানিতে ফেলে দেয়ার জেরে পাঁচ বছরের জন্য ছাত্ররাজনীতি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির নতুন অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আবদুুর রশীদ মল্লিক গত বৃহস্পতিবার এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে এই নির্দেশনা জারি করেছেন।

ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ২০১৯ সালের ২ নভেম্বর প্রতিষ্ঠানটির তৎকালীন অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দীন আহমেদকে প্রকাশ্যেই লাঞ্ছিত করেন। শিক্ষার্থীদের সামনেই তাকে ক্যাম্পাসের ভেতরের একটি পুকুরে টেনে-হিঁচড়ে ফেলে দেয়া হয়। এ ঘটনার ভিডিওচিত্র সে সময় ভাইরাল হয়েছিল সামাজিক মাধ্যমে। এ নিয়ে মামলা হয়েছিল। গঠিত হয়েছিল উচ্চপর্যায়ের তদন্ত কমিটি।

অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আবদুুর রশীদ মল্লিক স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘২০১৯ সালের ২ নভেম্বর ক্যাম্পাসে সংঘটিত ন্যাক্কারজনক সন্ত্রাসের প্রেক্ষিতে গঠিত তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ক্যাম্পাসে পাঁচ বছরের জন্য প্রতিষ্ঠানভিত্তিক সব ধরনের ছাত্র রাজনৈতিক কর্মকান্ড বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ঘোষণার প্রতি সবাইকে সচেতন থাকার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো’। অধ্যক্ষের এই বিজ্ঞপ্তি ছাত্রসংগঠনের নেতারা ফেসবুকে শেয়ার করছেন।

ক্লাসে প্রয়োজনীয় সংখ্যক উপস্থিতি না থাকার কারণে পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ দিয়েছিলেন না অধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দীন আহম্মেদ। আর এ কারণেই ক্ষিপ্ত হয়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাকে পুকুরের পানিতে ফেলে দেন। এ ঘটনায় সাতজনের নাম উল্লেখসহ ৫০ জনকে আসামি করে করেন অধ্যক্ষ। পুলিশ অন্তত ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করে। আর পদে থাকা নেতাদের দল থেকে বহিস্কার করে ছাত্রলীগ। পরবর্তীতে তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে চার ছাত্রের ছাত্বত্ব বাতিলসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয় রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট কর্তৃপক্ষ।

শর্টলিংকঃ