মায়ের কবরে চিরনিদ্রায় শায়িত সাহেরা খাতুন

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক স্বরাষ্ট্র এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী সাহারা খাতুনের (৭৭) দ্বিতীয় জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে । সকাল ১১ টায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে জানাজার নামাজ শেষে তাকে বনানীর কবর স্থানে মায়ের কবরে সমাহিত করা হয়। এর আগে সকাল ১০ টায় তেজগাঁওয়ে তার বাসা সংলগ্ন বায়তুল শরফ জামে মসজিদে প্রথম জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়।

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাড. সাহেরা খাতুন দীর্ঘদিন ধরে কিডনি, নিউমোনিয়াসহ নানা রোগে ভুগছিলেন। গত ২ জুন তাকে রাজধানীর আনা হয়। সেখানে কিছুদিন ধরে তিনি আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। পরে মেডিকেল বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৬ জুলাই উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ব্যাংককে নেয়া হয়। সেখানে বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে ওইদিনই তাকে ভর্তি করা হয়েছিল।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ১১টা ২৬ মিনিটে থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান প্রবীণ এই রাজনীতিক। সেখান থেকে বিশেষ বিমানে রাত পৌনে দুটায় দেশে আসে তার মরদেহ।

সাহেরা খাতুন ১৯৪৩ সালের ১ মার্চ ঢাকার কুর্মিটোলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম আব্দুল আজিজ ও মাতার নাম টুরজান নেসা। সাহারা খাতুন তিন মেয়াদ ধরে ঢাকা-১৮ আসন থেকে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচিত সংসদ সদস্য। ২০০৮ সালে মহাজোট ক্ষমতায় এলে প্রথমে তাকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী করা হয়। পরে সেখান থেকে সরিয়ে পাঠানো হয় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে।

সাহারা খাতুন বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টে একজন আইনজীবী হিসেবে তার কর্মজীবন শুরু করেন। আওয়ামী লীগের এই প্রেসিডিয়াম সদস্য বাংলাদেশ আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক। এছাড়াও তিনি আন্তর্জাতিক মহিলা আইনজীবী সমিতি ও আন্তর্জাতিক মহিলা জোটের সদস্য।

শর্টলিংকঃ