নায়িকা শিমু হত্যা: স্বামী ও গাড়িচালক তিনদিনের রিমান্ডে

জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমুর (৪৫) মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তার মরদেহ উদ্ধার করে ঢাকায় স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ (মিটফোর্ড) হাসপাতালে মর্গে রাখা হয়েছে।

সোমবার রাজধানীর কেরানীগঞ্জের হযরতপুরে তার বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি আবু সালাম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। কলাবাগান থানার ওসি পরিতোষ চন্দ্র বলেন, চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমুর লাশ উদ্ধারের বিষয়টি আমরা জানতে পারি সোমবার সন্ধ্যায়। যেহেতু গত রাতে (শনিবার) শিমুর স্বামী পরিচয়ে একজন তার নিখোঁজের বিষয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। সেই বিষয়ে আমারা খোঁজ খবর নিচ্ছি।

জানা গেছে, চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমু গত দুদিন ধরে নিখোঁজ ছিলেন। নায়িকা সাদিয়া মির্জা বলেন, কেরানীগঞ্জ থানার ওসি জানিয়েছেন শিমু আপার মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে এখনো জানা যায়নি। শিমু আপা রোববার সকাল ১০টা থেকে আজ (সোমবার) পর্যন্ত নিখোঁজ ছিলেন।

এ দিকে, অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমুর মৃত্যুর ঘটনায় স্বামী নোবেলসহ ও গাড়িচালক এস এম ফরহাদকে সোমবার দিবাগত রাতে আটক করেছে র‍্যাব-১০। পরে পুলিশ তাদের ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদনসহ ঢাকার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাবেয়া বেগমের আদালতে হাজির করা হয়। বিচারক আবেদনের দীর্ঘ শুনানি শেষে ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

অপরদিকে, ঢাকা পুলিশ সুপার (এসপি) মারুফ হোসেন সরদারের দাবি করে বলেন,চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমুকে পারিবারিক কলহের জেরে হত্যা করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে স্বামী সাখাওয়াত আলী নোবেল মডেল শিমুকে হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেছেন বলেও দাবি করেন তিনি। তবে মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে এখনো কিছু জানা যায়নি।

শর্টলিংকঃ