দুর্দান্ত লড়াই করে মুশফিকদের হারাল রাজশাহী

বড় তারকা নেই। অভিজ্ঞ ক্রিকেটার নেই। প্রথম ড্রাফটে দলে নেওয়া মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ইনজুরিতে। মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী তাই আসরের বাজির ঘোড়া। বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে তারাই বাজিমাত করেছে। পাঁচ দল নিয়ে অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু কাপের শক্তিশালী দল মুশফিকের বেক্সিমকো ঢাকাকে হারিয়েছে ২ রানে। দুর্দান্ত লড়াই করে দারুণ জয়ে অসাধারণ শুরু করেছে রাজশাহী।

জয়ের জন্য শেষ ওভারে ঢাকার প্রয়োজন ছিল মাত্র ৯ রান, হাতে ছিল ৫ উইকেট। কিন্তু ৬ বলে ৯ রানও তুলতে পারেননি সাব্বির রহমান রুম্মন ও মুক্তার আলীরা। মেহেদী হাসানের করা শেষ ওভারের প্রথম তিন বল ডট দেন। চতুর্থ বলে বাউন্ডারি হাঁকান মুক্তার আলী। পঞ্চম বল নো দেন মেহেদী হাসান। ফ্রি হিটে কিছুই করতে পারেননি মুক্তার আলী।

শেষ বলে জয়ের জন্য ঢাকার প্রয়োজন ছিল ৩ রান। জয়ের জন্য মুক্তার আলীকে বাউন্ডারি হাঁকাতে হতো। কিন্তু মেহেদীর নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ১ রানের বেশি নিতে পারেননি মুক্তার।

এর আগে ঢাকা লিগে শেখ জামালের হয়ে শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে দলকে জয় উপহার দিতে পারলেও এদিন সেই ঝলক দেখাতে পারেননি। যে কারণে ১৬০ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে তীরে গিয়ে তরী ডুবে ঢাকার। মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে ঢাকার বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে নেমে আশানুরূপ খেলতে পারেননি আশরাফুল।

এদিন মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ৩১ রানে ফেরেন ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত (১৭)। এরপর ১৭ রানের ব্যবধানে ফেরেন তিনে ব্যাটিংয়ে নামা রনি তালুকাদার (৬)।

৪৮ রানে দুই উইকেট পতনের পর ওপেনার আনিসুল ইসলাম ইমনের সঙ্গে জুটি গড়তে পারেননি চারে ব্যাটিংয়ে নামা আশরাফুল। নয় মাস পর খেলতে নেমে ৯ বলে মাত্র ৬ রানে ফেরেন জাতীয় দলে ‘সাবেক’ হয়ে যাওয়া এই তারকা ব্যাটসম্যান।

তবে শেষ দিকে মেহেদী হাসানের ব্যাটিং তাণ্ডবে শেষ পর্যন্ত ৯ উইকেটে ১৬৯ রান তুলতে সক্ষম হয় রাজশাহী। দলের হয়ে ৩২ বলে চারটি ছক্কা ও তিন চারের সাহায্যে সর্বোচ্চ ৫০ রান করেন মেহেদী হাসান। এছাড়া ৩৯ রান করেন নুরুল হাসান সোহান। ৩৫ রান করেন ইমন।

শর্টলিংকঃ