দিনাজপুরে লিচু বাজার মনিটরিং করছে সেনাবাহিনী

করোনা পরিস্থিতিতে দিনাজপুরের দুগ্ধ খামার, টমেটো বাজার এবং লিচু বাজারের বেচাকেনার সমস্যা মোকাবেলায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ফোর হর্সের সদস্যরা ধারাবাহিকভাবে কাজ করে চলেছে।

জেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর যৌথ তদারকিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে তারা সবরকম পরিস্থিতি সামাল দিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিয়ে দেশের লিচুর সবচেয়ে বড় বাজার বসিয়েছে দিনাজপুরের গোর-ই-শহীদ বড়মাঠে। এতে একদিকে যেমন বজায় থাকছে সামাজিক দূরত্ব অন্যদিকে সুবিধামত পরিসরে বিকিকিনি চলছে।

দিনাজপুরের বিভিন্ন এলাকার বাগানে উৎপাদিত কোটি কোটি টাকা মুল্যের লিচু সুষ্ঠ বিক্রয় ব্যবস্থাপনা ও দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতে সরবরাহে কোন বিঘœ না ঘটে সেজন্য প্রশাসনকে সহযোগিতা করছে সেনাবাহিনী।

আজ সকালে সেনাবাহিনীর ৬৬ পদাতিক ডিভিশনের ফোর হর্স এর সদস্যরা লিচু বাজারে এসে ব্যবসায়ী-লিচু চাষীদের সাথে কথা বলেন ও খোজ খবর নেন, তাদের সুবিধা অসুবিধার কথা শোনেন ও প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করেছেন।

লিচু বাজারে আগত দেশের বিভিন্ন স্থানের ব্যবসায়ীরা জানান, সেনাবাহিনীর উপস্থিতিতে স্বস্তি ফিরেছে লিচু বাজারে। নেই কোন চাঁদাবাজি, রমরমা ভাব এখন লিচুর বাজারে।

তারা বলেন, আমরা ব্যবসায়ীদের স্বাস্থ্যবীধি মেনে ব্যবসা পরিচারণা করার বিষয়ে ধারণা দিচ্ছি। শুধু লিচু নয় অন্যান্য ফসলের যাতে সুষ্ঠ ব্যবস্থাপনা হয় সেদিকে নজর রাখছি। এছাড়া আমাদের নিজেদের চাহিদামত লিচু আমরা সরাসরি বাগান মালিকদের কাছ থেকে ন্যায্য দামে কিনছি।

সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন মোঃ ইসতিয়াজ আরাফাত জানান,দিনাজপুরের লিচু বাজারের বেচাকেনার সমস্যা মোকাবেলায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ফোর হর্সের সদস্যরা অবিরাম কাজ করে চলেছে। জেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর যৌথ তদারকিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে তারা সবরকম পরিস্থিতি সামাল দিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিয়ে দেশের লিচুর সবচেয়ে বড় বাজার বসিয়েছে দিনাজপুরের গোর-ই-শহীদ বড়মাঠে। এর আগেও দুগ্ধ খামার এবং টমেটো বাজারের সামাজিক দুরুত্ব বজায় রেখে ক্রয় বিক্রয় সমস্যা সমাধানে কাজ করেছেন। কৃষকরা যাতে টমেটো ও দুধের দাম পায় সেজন্য বাহিরের ব্যবসায়ী ক্রেতাদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থাসহ স্থানীয় লোকজনের সচেতন করতে কাজ করেছেন।

শর্টলিংকঃ