করোনাভাইরাস

দারিদ্রের চরম সীমায় পৌঁছিবে বিশ্বের ১১২ কোটি মানুষ

মহামারি করোনাভাইরাস (কোভিট-১৯) ছোবলে দারিদ্রের চরম সীমায় পৌঁছিবে বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ। এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। তাতে বলা হয় করোনায় চরম দারিদ্রতার শিকার হবে বিশ্বের ১১০ থেকে ১১২ কোটি মানুষ।

আন্তর্জাতিক গবেষণা সংস্থা বরাত দিয়ে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকার জানায় বিশ্বব্যাঙ্কের দেওয়া পরিসংখ্যানকেও ছাপিয়ে গিয়েছে। এর আগে বিশ্বব্যাঙ্ক জানিয়েছিল, করোনার কারণে চরমতম দারিদ্রের শিকার হবে বিশ্বের ৭ থেকে ১০ কোটি মানুষ। প্রাণঘাতী কোভিট-১৯ সংক্রমণ ঠেকাতে বিশ্বের বেশিরভাগ দেশই বেছে নিয়েছে লকডাউন। এর ফলে চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বিশ্ব অর্থনীতি। যার জেরে দরিদ্র হতে চলেছে দারিদ্র সীমার নিচে বসবাস করা মানুষগুলো। এ ভাইরাসের কারণে বিশ্বের আরও সাড়ে ৩৯ কোটি মানুষকে সহ্য করতে হবে চরমতম দারিদ্র্যের জ্বালা-যন্ত্রণা।

আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয় এই গবেষণাপত্রটি প্রকাশ করে জাতিসংঘের বিশ্ববিদ্যালয় বিভাগের অধীনে থাকা ‘ইউএনইউ-ওয়াইডার’। গবেষকদলে ছিলেন লন্ডনের কিংস কলেজ ও অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির অর্থনীতিবিদরা। চরমতম থেকে খুব দরিদ্র, বিভিন্ন ধরনের দারিদ্র্যের-সীমা নির্ধারণের জন্য মানুষের গড় দৈনিক আয়ের যে মাত্রাগুলি বিশ্বব্যাঙ্ক নির্ধারণ করেছে, সেই সবক’টির ভিত্তিতেই এই গবেষণা করেন তারা । দরিদ্রদের আর্থিক অবস্থা বোঝাতে বিশ্বব্যাঙ্ক যে কয়েকটি মাত্রা নির্ধারণ করেছে তার একটি হল, যেসব মানুষের আয় দিনে ১৪৪ টাকা ২৪ পয়সা (বা, ১.৯০ ডলার) বা তারও কম। বিশ্বব্যাঙ্কের দেওয়া সংজ্ঞায় এই আয়ের মানুষদেরই বলা হয়, চরমতম দারিদ্রের শিকার। আর যে সব মানুষ দৈনিক ৪১৭ টাকা ৪১ পয়সা (৫.৫০ ডলার) আয় করে থাকে, তারা হচ্ছে বেশি দরিদ্র।

গবেষকরা আনন্দবাজার পত্রিকাকে জানিয়েছেন, মহামারী করোনা পরিস্থিতিতে দারিদ্রের চরম সীমায় পৌঁছে যাবেন বিশ্বের অন্তত ১১২ কোটি মানুষ। আর বেশি দরিদ্রের মাত্রায় গরিব হয়ে পড়বেন কমপক্ষে ৩৭০ কোটি মানুষ, যা পৃথিবীর মোট জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি। পরিস্থিতির চরম অবনতি হলে কোনও নির্দিষ্ট এলাকায় মানুষের গড় বাৎসরিক আয় কমে যাবে কম করে ২০ শতাংশ । গবেষকদলের সদস্য অ্যান্ডি সামনার জানান ‘বিভিন্ন দেশের সরকারগুলি যদি জরুরি ভিত্তিতে এই সব মানুষের কল্যাণে আরও কিছু পদক্ষেপ না নেয়, লকডাউনের ফলে প্রতি দিন গরিবদের আয় যে ভাবে কমছে, তা পূরণ করার লক্ষ্যে কোনও সদর্থক ব্যবস্থা নিতে না পারে, তাহলে পুরো বিশ্বের গরিবদের ভবিষ্যত বলে আর কিছুই থাকবে না।

গবেষকদের দেওয়া তথ্যমতে, সবচেয়ে সোচনীয় অবস্থা হবে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলির। তার মধ্যে প্রথম দিকে রয়েছে জনসংখ্যাবহুল দেশ ভারতের নাম। তার পরেই রয়েছে সাহারা মরুভূমি সংলগ্ন আফ্রিকার দেশগুলি। গোটা বিশ্বে যে ১১২ কোটি মানুষ চরমতম দারিদ্রের শিকার হবেন, তাদের এক-তৃতীয়াংশই আফ্রিকান অঞ্চলের নাগরিক। তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা ।

শর্টলিংকঃ