গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের নামে বিকল্প কমিটি করায় মামলা

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের নাম ও লোগো ব্যবহার করে বিকল্প কমিটি  ঘোষণা করায় গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে মামলা করা হয়েছে।।গতকাল এ অভিযোগে গোবিন্দগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুর রহমান প্রধান টুকু গোবিন্দগঞ্জ সিনিয়র সহকারী জজ আদালতেে এ  মামলা করেন।

তিনি এজাহারে উল্লেখ করেন- গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের কতিপয় সাংবাদিক নামধারী ব্যক্তি গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের নাম ও লোগো ব্যবহার করে একটি স্বঘোষিত কমিটি ঘোষণা করে নানা ধরণের অপতৎপরতা চালিয়ে ক্লাবের মানক্ষুন্ন করছে।

১৯৮৩ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকেগোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাব গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নির্বাচনের মাধ্যমে কমিটি গঠন করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় এ বছরের মে মাসের ২০ তারিখে বিধি মোতাবেক ২০২১-২০২৩ সালের দ্বি-বার্ষিক কার্য নির্বাহী পরিষদ গঠিত হয়। এতে দৈনিক ইত্তেফাক প্রতিনিধি গোপাল মোহন্ত সভাপতি ও দৈনিক ঘাঘট প্রতিনিধি জাহিদুর রহমান প্রধান টুকু সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পুনঃ নির্বাচিত হন। নির্বাচিত ১৫ সদস্য বিশিষ্ট কার্যনির্বাহী পরিষদ তাদের সকল কার্যক্রম চালিয়ে আসছে।

কিন্তু হঠাৎ করেই পূর্বের কয়েকজন সদস্য পদ না পেয়ে কতিপয় ব্যক্তিদের নিয়ে গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের নাম ও লোগো ব্যবহার করে চলতি বছরের ২৪ জুন ফেসবুকে ৫৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি প্রকাশ করে। সেইসাথে তারা বিভিন্ন জায়গায় গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দিয়ে প্রেসক্লাবের সুনাম ও ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করতে থাকে।

এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মঞ্জুরুল হক সেলিম বলেন, “তথাকথিত কমিটির বিরুদ্ধে ২৮ জুন গোবিন্দগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি  (জিডি) করা হয়েছে। এর পরেও ওই তথাকথিত কমিটি তাদের কার্যক্রম বন্ধ না করে পেশি শক্তির সাহায্যে নানা ধরণের হুমকি প্রদানসহ অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির পায়তারা করে।”

এ কারণে গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের বর্তমান কার্যনির্বাহী পরিষদের মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ওই তথাকথিত কমিটির বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করা হয়। মামলায় প্রেসক্লাবে অনুপ্রবেশের নিষেধাজ্ঞাসহ গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের নাম ব্যবহার করে তথাকথিত ওই কমিটি যাতে কোন কার্যক্রম চালাতে না পারে এ ব্যাপারে আদালতের নিকট আদেশ চাওয়া হয়েছে। শুনানী শেষে আদালত বাদীর আর্জি অনুযায়ী কেন অস্থায়ী নিষোধাজ্ঞা দেওয়া হবে না এ মর্মে বিবাদী পক্ষকে ৭ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানো নোটিশ জারির আদেশ দেন।

মামলার বাদি সাধারণ সম্পাদক জাহিদুর রহমান প্রধান টুকু জানান, তিনি গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের ৯ বার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হয়ে আসছেন। নির্বাচনে জিততে না পারা কতিপয় সদস্য- যাদের কোন দিনই সাংবাদিকের পরিচয় ছিল না এমন ব্যক্তিদের নিয়ে গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের নাম ব্যবহার করে একটি তথাকথিত কমিটি প্রকাশ করে গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের সুনাম ও ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে। এ প্রসঙ্গে, গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি গোপাল মোহন্ত জানান, গোবিন্দগঞ্জ প্রেসক্লাবের ঐতিহ্য, সুনাম ও ভাবমূর্তি রক্ষার জন্যই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

শর্টলিংকঃ