গৃহবধূর শরীরে আগুন দিলেন স্বামী ও শ্বাশুড়ি

গাইবান্ধা সদর উপজেলার মালিবাড়ি ইউনিয়নের কাবিলের বাজার গ্রামে মঙ্গলবার বিকেলে পারিবারিক কলহলের জের ধরে গৃহবধূ শারমিন বেগম (২২) কে গ্যাসলাইট দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে শরীর ঝলসে দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় তার স্বামী কামরুল ইসলাম ও শাশুড়ী কুলসুম বেগম জড়িত রয়েছে।

এ ঘটনায় গুরুতর আহত অবস্থায় গৃহবধূ শারমিনকে প্রথমে গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে সেখানে সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এঘটনায় বুধবার শারমিন আকতারের পিতা শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে ৩ জনকে আসামী করে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে শারমিনের স্বামী কামরুল ইসলাম ও শাশুড়ী কুলসুম বেগমকে গ্রেফতার করে।

এলাকাবাসি সুত্রে জানা গেছে, পারিবারিক কলহকে কেন্দ্র করে তার শাশুড়ি কুলসুম বেগম ও পুত্রবধূ শারমিনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে মনোমালিন্য চলে আসছিল। এরই একপর্যায়ে শারমিনকে বেদম মারপিট করেন তার শাশুড়ী কুলসুম বেগম। এসময় শারমিনের স্বামী কামরুল ইসলামও তাকে মারপিট করে। এসময় শাশুড়ি শারমিনের পরণের ম্যাক্সিতে গ্যাস লাইট দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। এরপর তাকে ঘরে ফেলে রেখে স্বামী শ্বাশুড়ী দরজা বন্ধ করে অন্যত্র চলে যায়। এসময় শারমিনের চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে গুরুতর অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করায়। পরে শারীরিক পরিস্থিতির কারণে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালের আরএমও ডা: মো. হারুন অর রশিদ জানান, ওই গৃহবধূর শরীরের কিছুটা অংশ পুড়ে গেছে। শরীরের বিভিন্ন স্থানে পোড়ার ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে। এ হাসপাতালে তার চিকিৎসা সম্ভব নয় বলে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মাহফুজুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ওই ঘটনায় দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামীকেও গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

শর্টলিংকঃ